Indian Football Team : সিঙ্গাপুরের সাথে ১-১ গোলে ড্র করলো সুনীলরা

0
94
Indian football team drew 1-1 with Singapore
Indian football team drew 1-1 with Singapore

গত জুন মাসের এএফসি এশিয়ান কাপ কোয়ালিফায়ারসের ম‍্যাচের পর শনিবার ফের খেলতে নামলো ভারতীয় ফুটবল দল (Indian Football Team)। ভিয়েতনামের হো চি মিন শহরে থং নাহট স্টেডিয়ামে ‘হু‌ং থিন ফ্রেন্ডলি ফুটবল টুর্নামেন্ট ‘ সিঙ্গাপুরের বিরুদ্ধে ১-১গোলে ‘ড্র’ করলো ‘দ‍্য ব্লু টাইগার্স’রা।

অভিজ্ঞ ভারতীয় ডিফেন্ডার সন্দেশ ঝিঙ্গান এই ম‍্যাচে খেলেননি। ম‍্যাচের ৩৭ মিনিটে এগিয়ে যায় সিঙ্গাপুর। এর মিনিট ছয়েক বাদে আশিক কুরুনিয়ান সমতায় ফেরায় ভারত’কে (Indian Football Team)। ম‍্যাচে ভারতের মাঝমাঠ তেমন একটা নজর না কাড়লে উইং দুটো দারুণ সচল ছিলো বরাবর। কিন্তু বিপক্ষ দলের রক্ষণের প্রাচীর ভাঙা সম্ভব হয়নি।

ম‍্যাচের শুরু’তে দুই দলের খেলায় অতি সতর্কতা লক্ষ‍্য করা গেছে। ১৪ মিনিটের মাথায় ভারতের রক্ষণ ভাগে হামলা চালায় সিঙ্গাপুর। ইখশান ফানদি’র সামনে জ্বলেজ্বলে হয়ে উঠেছিলো গোল করার সম্ভাবনা, কিন্তু ভারতের আনোয়ার আলী নিখুঁত ক্লিয়ারে সিঙ্গাপুরের সেই আশায় জল ঢালেন। (Indian Football Team)

ফানদি এদিন বারবার নিজের সুচারু ফুটবলে ভারতের মাথায় ঘাম ছুঁটিয়েছেন। ম‍্যাচের ১৪ মিনিটে ঘটে যাওয়া ঘটনার রেশ দশ মিনিট বয়স পেরানোর সাথে সাথে হেডে ভারতের জালে বল জড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেন, কিন্তু ‘ভারতের প্রাচীর’ গুরপ্রীত সিং সান্ধু, তার বিশ্বস্ত হাতে সেই পরিস্থিতির সামাল দেন।

ভারতীয় দলের (Indian Football Team) তরফে প্রথম আক্রমণের দেখা মেলে ১৮ মিনিটে। দলগত প্রচেষ্টায় গোলটা প্রায় করেই ফেলছিলো সুনীলরা। অনিরুথ থাপায় দারুণ একটা থ্রু পাস বাড়ান যা ধরে নেন আশিক কুরুনিয়ান, তিনি গোল করার বল বাড়ান লিস্টন কোলাসো’কে। কোলাসোর বক্সের বাইরে থেকে নেওয়া শট নিঁখুত ছিলো, কিন্তু সিঙ্গাপুরের গোলকিপার অধিনায়ক হাসান সানি ডাইভ দিয়ে একটা দারুণ সেভ করার পাশাপাশি দলকে একটা নিশ্চিত গোল হজম করার থেকে বাঁচান।

মাঠে অধিনায়কের মতোই বিচরণ ছিলো সিঙ্গাপুরের হাসানের, ২৯ মিনিটেও ভারতের একটা গোল করার প্রচেষ্টা ব‍্যর্থ করেছে। থাপার নেওয়া কর্ণার মাথা ছুঁয়ে প্রতিপক্ষের জালে জড়িয়ে দিতে উদ‍্যত হন আনোয়ার আলী। কিন্তু দ্রুত বল তালুবন্দী করেছিলেন হাসান।

৩৭ মিনিটে অবশেষে ভারতের জালে বল জড়িয়ে দিয়ে সিঙ্গাপুর’কে এগিয়ে দেন ফান্দি। দর্শনীয় ফ্রিকিকে ভারতীয় ফুটবলার’দের বানানো দেওয়াল টপকে, গোলকিপার সান্ধু’র প্রসারিত হাত’কে পরাস্ত করে বল জালে জড়িয়ে দেন।

অবশ্য গোল হজম করার প‍র শোধ দিতে বেশি সময় নেয়নি ভারত। ৪৩ মিনিটের মাথায় একটা দারুণ অনুমানে প্রতিপক্ষের থেকে বল কেড়ে নিয়ে অধিনায়ক সুনীল ছেত্রী’কে বাড়ান সাহাল আব্দুল সামাল। দীর্ঘ কয়েক বছরের অভিজ্ঞতার বিচারে থ্রু পাঁসে গোটা সিঙ্গাপুরের ডিফেন্স’কে পরাস্ত করেন ‘ক্যাপ্টেন ফ‍্যান্টাস্টিক’। আশিকের কাছে গোলের ভারত কাপ্তানের গোলের ঠিকানা লেখা বল এসে পৌঁছলে আশিক কুরুনিয়ান বা পায়ের জোড়ালে শটে বল জালে জড়াতে কোনও ভুলচুক করেননি।

আরও পড়ুনঃ Emami East Bengal : লীগের ম‍্যাচে রিজার্ভ বেঞ্চে থাকছেন না কনস্টানটাইন, যাবতীয় নজর জেসিনের দিকে

দ্বিতীয় অর্ধের খেলা মিনিট চারেক গড়ানোর র মাথায় আশিক – থাপা জুঁটি ২-১ করে ফেলছিলো। থাপা বল বাড়ালে আশিক জোড়ালো একটা শট নেয়, কিন্তু একেবারে সময় মতো সেভ দিয়ে দেন হাসান।

ক্রমশ দুই দল রক্ষণাত্মক খেলা শুরু করে। রক্ষণের খোলস প্রচন্ড শক্ত করে ফেলে সিঙ্গাপুর। ম‍্যাচের একটা শূন্যতা বজায় ছিলো বেশ কিছু সময়, নিরাবতা ভাঙেন লিস্টন কোলাসো, বাম প্রান্ত থেকে দুরন্ত ড্রিবলে গোল মুখ খুলে ফেলেন তিনি। কিন্তু শেষ মুহূর্তে তার নেওয়া জোড়ালো শটটি দিকভ্রষ্ট হয়।

খেলা শেষের পর ঘুরপথে দলের ডিফেন্সের পারফরম্যান্স নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন “ভারত অধিনায়ক”। সুনীল বলেন –

“আমাদের কিছু জায়গায় ভালো কিছু করার দরকার ছিলো। আমি নিশ্চিত কোচ এবিষয়ে কথা বলবেন আমাদের সাথে। আমরা বেশ কিছু গোল করার সুযোগ নষ্ট করেছি, আবার ডিফেন্সেও একটু ভালো করা যেতো, তবে এখনই নিজেদের নিয়ে সমালোচনায় যেতে চাইনা, ভুল গুলো নিজেদের শুধরে নিতে হবে।”

আরও পড়ুনঃ 2007 T20 World Cup : কেনো সচিন, সৌরভ, দ্রাবিড়’রা খেলেননি ২০০৭ সালের টি ২০ বিশ্বকাপ, জানুন কারণ